How to earn money online after ssc exam 2022

পরিক্ষার পরে অনলাইনে টাকা আয়

Ssc পরীক্ষার পরের সময়টুকুর মতো লম্বা ছুটি খুব তাড়াতাড়ি আর পাওয়া যাবে কিনা সন্দেহ তবে সময়টা সঠিকভাবে ব্যবহার করতে পারলে তার জীবনে বাক ঘুরিয়ে দিতে যথেষ্ট।

নতুন ভাষা শেখা

ইংরেজির পাশাপাশি অন্য বিদেশী ভাষা জানা খুব কাজে দেয়। দেশের বাইরে পড়তে যাওয়া স্কলারশিপ পাওয়া বা ইউনিভার্সিটির আন্তর্জাতিক শিক্ষার্থী বদল অনেক ক্ষেত্রেই কাজে দেবে এই সময়ে বিদেশি কোন ভাষা শিখে ফেলে।

কম্পিউটার শেখা

ভবিষ্যতের কথা ভেবে শিখে নেওয়া যায় এম এস ওয়ার্ড এমএস এক্সেল পাওয়ারপয়েন্ট এর মতো বিষয়গুলো। পড়াশোনা বা অ্যাসাইনমেন্ট তৈরিতে তোকাজে দেবে। ভবিষ্যতে চাকরির ক্ষেত্রেও এর সুফল মিলবে।

তাই কম্পিউটার শেখা টা আমাদের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। কম্পিউটারে সার্টিফিকেট থাকলে অনেক চাকরিতেই মিলবে সুযোগ আর ভালো যোগ করতে পারবেন। তাই কম্পিউটার শেখার বিষয়টা মাথায় রাখা আবশ্যক।

ভোকাবুলারি

নিজের ভোকাবুলারিতে নজর দেওয়া যায়। কমপক্ষে 15 ইংরেজি শব্দ এমন ভাবে শেখা দরকার যাতে সেগুলো মাথার ভেতর থাকে সবসময়। পড়াশোনা তো বটেই কথা বলার সময়ও এই শব্দগুলো কাজে দেবে।

তাই শব্দার্থ গুলো মুখস্থ রাখলে আপনার বাস্তব জীবনে অনেকটাই কাজে আসবে। আর যদি আপনি ইংরেজিতে কথা বলতে পারেন তাহলে তো ব্যাপারটাই অন্যরকম। তাই আমাদের এক হাজারের অধিক শব্দার্থ মুখস্ত রাখা খুবই জরুরি।

নেটওয়ার্কিং

জীবনে সফল হতে গেলে এখন নেটওয়ার্কিং এর বিকল্প নেই। এই সময়ে অন্তত 100 জনের নতুন নেটওয়ার্ক বানিয়ে নেওয়া যায়। লেখক সাংবাদিক ডাক্তার পুলিশ অফিসার আইনজীবী শিক্ষাবিদ মিলিটারি পাইলট কূটনীতিক কৃষক রিকশাচালক যে কেউ হতে পারে এই নেটওয়ার্কের অংশ।
তাই আমাদের নেটওয়ার্ক বিষয় জানা খুবই জরুরী এবং নেটওয়ার্কিং করাও জরুরি।

ইলেকট্রনিক্স এর কাজ

অরে করেক্ট অন্স্বের কাজে প্রতি ঝোঁক থাকে। নিজে নিজেই হয়তো শেখা হয়েছে টুকটাক কাজ। আরেকটু ভালো করে শিখে নেওয়া যায় এই সময়
পড়াশোনার পাশাপাশি আইয়ের কিন্তু খুব ভালো একটা মাধ্যম।
তাই আমি মনে করি ইলেকট্রনিক্স এর কাজ শেখা প্রতিটি ছাত্র জন্য জরুরী।

অনলাইন থেকে রোজগার

পড়াশোনার পাশাপাশি কিছু একটা করে রোজগারের কথা অনেকেই ভাবেন। অনলাইন মাধ্যম হতে পারে একটা ভালো উপায়। সেটা যেতে পারে সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন এসইও। এস ই ও ব্যাবহার করে ইউটিউব বা ফেসবুক পেইজের জন্য কনটেন্ট তৈরি করে রোজগার করা যায়। শেখা যায় এডিটিং এর ভিডিও অনেক কাজ।
এতে নিজের বানানো ভিডিও নিজেই এডিট বা ফিলানসার ভিডিও এডিট হিসেবে কাজ করা সম্ভব। অনলাইন থেকে আয় এটাই বিশেষ একটি মাধ্যম। যদি অনলাইনে ক্যারিয়ার গড়তে চান তাহলে ফ্রিল্যান্সিং জানা আবশ্যক।

উচ্চশিক্ষার খোঁজখবর

এইচএসসির পর কোথায় কোন বিষয়ে দেশে নাকি বিদেশে লেখাপড়া আগ্রহ সেই সিদ্ধান্ত নিতে হবে এখনই। এবং সেই অনুযায়ী খোঁজখবর নিয়ে ফেলতে হবে এই ছুটিতে। বিশেষ করে যারা উচ্চশিক্ষার জন্য দেশের বাইরে যেতে আগ্রহী।

কোন কোন দেশে কি কি স্কলারশিপ দেয় কি যোগ্যতা বা দরকারি কাগজপত্র এসব জানা থাকলে সিদ্ধান্ত নিতে সুবিধা হবে। তাই অনলাইন সম্পর্কে আপনাকে বিশেষ জ্ঞান অর্জন করতে হবে যাতে সব ধরনের খোঁজখবর সব আপনি অনলাইন থেকে নিতে পারেন।

অনলাইনে আয়

বর্তমান সময়ে অনলাইন ব্যাপক বিস্তার লাভ করেছে যার ফলে বাস্তব জীবনে এর প্রভাব অনেক। যে সমস্ত বিষয় গুলো নিয়ে কাজ করা যায় সেগুলো হলো ইউটিউব মার্কেটিং ফেসবুক মার্কেটিং এবং ওয়েবসাইট ডেভলপিং।
এসব বিষয়ে যে কোন একটি বিষয় নিয়ে আপনি কাজ করে যান একদিন সফল অর্জন করবেন।

আর সেই সফলতায় আপনাকে পৌঁছে দিবে সফলতার স্বর্ণ দুয়ারী। আর তাছাড়া আপনারা আরো কয়েকটি বিষয়ে কাজ করতে পারেন সেগুলো নিম্নে দেওয়া হল।
করোনার এই সময়ে অনেকেই হয়তো পরিবারকে আর্থিকভাবে সহায়তা করার কথা ভাবে। সাইকেল চালাতে পারলে ডেলিভারির কাজ হতে পারে একটা ভালো উপায়।
অনলাইন শপ বা ডেলিভারি সার্ভিস গুলোতে যুক্ত হওয়া যায়। সেলাইয়ের কাজ ও কিন্তু ঘরে বসে আয় করার জন্য দারুন উপায়। কাটিং সিং-এর একটা শর্টকোর্স করে নেওয়া যায়।

ফেসবুকের গ্রুপ বা পেইজ খুলে পোষাক তৈরীর অর্ডার মিলবে তাতে। আর বর্তমান সময়ে অনলাইন বিজনেস ব্যাপক প্রসার বিস্তার লাভ করেছে এবং অনলাইনে অনেক প্রকার পণ্য অর্ডার মিলছে। অনলাইন এখন প্রতিটি খাতেই যোগ হয়েছে।

নন ফিকশন বই

পরাজয় কিছু নন ফিকশন বই হতে পারে সেটা ক্যারিয়ার বা মোটিভেশন সংক্রান্ত বই অথবা কারো বায়োগ্রাফি। বই থেকে নেওয়া যায় জীবনের সফল হবার নির্দেশনা।

অস্কারজয়ী সিনেমা

সিনেমাকে আমরা বিনোদনের মাধ্যম হিসেবে ব্যবহার করি ধরে নিলেও এতে আমাদের জীবনের প্রতিফলন থাকেনা। এই ছুটিতে দেখা যায় গত ৩০ বছরের ত্রিশটা অস্কারজয়ী সিনেমা। এস এইচএসসির পরক্রিয়েটিভ কোন বিষয়ে পড়া হচ্ছে থাকলে এই সিনেমাগুলো দেখা যেতে পারে। এমনও কিছু সিনেমা রয়েছে যা বাস্তব জীবনকে রূপ দেয়। সামাজিক জীবনেও এর ব্যাপক প্রসার ঘটে থাকে।

লাইফ স্কিল

শেখা যায় নানা লাইফ স্কিল যেগুলো ভবিষ্যৎ জীবনে কাজে লাগবে যেমন সাঁতার কাটা সাইকেল চালানো রান্না ফার্স্ট এইড দেওয়া ড্রাইভিং ইত্যাদি। এসব বিষয়ে জ্ঞান অর্জন করাজরুরী

ভ্রমণ

করুনার ভয়ে রয়েছে এখনো তারপরও সম্ভব হলে কিছু জায়গায় এই ফাঁকা ঘুরে আসা যায়। কারণ ভ্রমণ করার জন্য যে সব সময় দরকার সব শীঘ্রই সেটা আর আসবেনা।

এসএসসি পরীক্ষা দেওয়া মানে জীবনের এমন একটা পর্যায়ে এসে পৌছালো,
এই সময়ে যে সিদ্ধান্ত নেওয়া হোক না কেন তার ফলাফল দীর্ঘমেয়াদি। তাই এসএসসি পরে এই সময়টা গুরুত্বপূর্ণ। আর এই গুরুত্বপূর্ণ সময় তাকে পরিকল্পিতভাবে ব্যবহার করা যেতে পারে নিজের সুন্দর ভবিষ্যতের জন্য।

Leave a Comment